1. [email protected] : Rangpur24.com : Mahfuz prince
লকডাউনে হাঁফ ছেড়েছে রংপুর চিড়িয়াখানার খাঁচাবন্দিরা - rangpur24
বুধবার, ১২ মে ২০২১, ০৭:১৮ পূর্বাহ্ন
Title :
ঈদের আনন্দ ভাগাভাগিতে মানবতায় মানুষ সংগঠনের ঈদ উপহার ও মাক্স বিতরণ আমরাই পাশে রংপুর গ্রুপের উদ্যোগে তরুণদের দেয়া নতুন জামা পেলে সুবিধাবঞ্চিত শিশুরা করোনায় কেউ না খেয়ে মরেনি : তথ্য প্রতিমন্ত্রী পিছিয়ে গেল বুয়েটের ভর্তি পরীক্ষা মালয়েশিয়ায় ঈদ বৃহস্পতিবার করোনার মধ্যেই নির্বাচন কিনা সিদ্ধান্ত ১৯ মে বিপন্ন কর্মহীন মানুষের মাঝে রংপুর চেম্বারের খাদ্যসামগ্রী বিতরণ রাণীশংকৈলে আলী আকবর প্রতিবন্ধী স্কুলে ঈদ উপহার বিতরণ করোনার ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট সন্দেহ সৈয়দপুরে একই পরিবারের ৪  জন পজিটিভ, বাসা লকডাউন আজ বীরমুক্তিযোদ্ধা ও লালিয়া টেইলার্স এর স্বাত্তাধিকারী মকবুল হোসেনের ৩য় মৃত্যু বার্ষিকী

স্যামসাং প্রিমিয়াম ব্র্যান্ড শপ এখন আর,এ,এম,সি শপিং কমপ্লেক্স এর পঞ্চম তলায়। শপ নংঃ- ২,৩,৪ প্রয়োজনেঃ- ০১৩২২৭১৪৮৪৭, ০১৮১৮৭০১৮৭২

লকডাউনে হাঁফ ছেড়েছে রংপুর চিড়িয়াখানার খাঁচাবন্দিরা

  • Update Time : রবিবার, ১১ এপ্রিল, ২০২১
  • ৮৮ Time View

করোনাকালে রংপুর চিড়িয়াখানায় মানুষের কোলাহল না থাকায় নিশ্চিন্তে নীরবে সময় কাটছে খাচাবন্দি প্রাণীর। আগে অনেক মানুষজন খাঁচার কাছে থাকত। তখন তাদের মধ্যে এক ধরনের জড়তাও থাকত, এখন সেটি নেই। দর্শনার্থী না থাকার কারণে প্রাণীরা ঠিক মতো তাদের খাবার খাচ্ছে। প্রাণীগুলো নিজেদের মত করেই এখন সময কাটচ্ছে।
শনিবার দুপুরে গিয়ে দেখা গেল- বানরের ছুটাছুটি। জলহস্তি কাদায় গড়াগড়ি কছে। মাঝেমধ্যে চোখ ‍খুলতেও যেন চরম আলস্য তার। সিংহ আর বাঘগুলোও সকালের খাবার খেয়ে খাঁচার ভেতর গড়াগড়ি করে কাটাচ্ছে। চিড়িয়াখানায় বিভিন্ন প্রজাতির প্রাণীর মধ্যে সংখ্যা সবচেয়ে বেশি হরিণের। এদের মধ্যে রয়েছে বিলুপ্তপ্রায় মায়াহরিণও। তাদের খাদ্য বলতে সবুজ গাছ-পাতা। চিড়িয়াখানার এক কর্মচারী জানান, বিদেশে এক চিড়িয়াখানার প্রাণীর করোনা সংক্রমণের খবরে কর্তৃপক্ষ বেশি সতর্ক। স্বাস্থ্যবিধি মেনেই প্রাণীদের খাবার সরবরাহ করা হচ্ছে।
চিড়িয়াখানার ডেপুটি কিউরেটর আম্বার আলী তালুকদার জানান, এখন দর্শনাথীর কোলাহল নেই। দর্শনার্থী থাকলে ভয়ে ওরা জড়সড় হয়ে খাঁচার মাঝখানে বসে থাকতো। তারা খাবার ঠিকমতো খেত না। অনেক সময় খাবার উচ্ছিষ্ট হতো। এখন খাবার উচ্ছিষ্ট হয় না। এমন পরিস্থিতিতে খাঁচাবন্দি পশু-পাখিগুলোর দিন ভালোই কাটছে। করোনায় বন্ধ চিড়িয়াখানায় সব প্রাণী বর্তমানে ভালো আছে, সুস্থ আছে। তারা খাঁচায় স্বাধীনভাবে ঘোরাফেরা করছে, কোনো অস্বস্তি নেই। আছে বন্য পরিবেশে ।
চিড়িয়াখানা সূত্রে জানা যায়, জেলার অন্যতম শ্রেষ্ঠ বিনোদন কেন্দ্র এই চিড়িয়াখানা। অনাবিল আনন্দ উপভোগ করতে প্রতিদিন বিভিন্ন স্থান থেকে হাজারো সৌন্দর্য পিপাসু বেড়াতে আসতেন চিড়িয়াখানায়। নগরীর প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত এই চিড়য়াখানা। বিানোদনকেন্দ্র চিড়িয়াখায় ৩০ প্রজাতির জীবজন্তু ও পাখ- পাখালী রয়েছে। এর মধ্যে সিংহ, রয়েল বেঙ্গল টাইগার, চিতা বাঘ, হায়েনা, কাল ভল্লুক, বানর, বেনুন, হরিণ, ময়না, টিয়া, ঈগল, গাধা, শকুন, সারস, বক, হারগিলা, মদনটাক, ঘড়িয়াল ও অজগর সাপ উল্লেখযোগ্য। এছাড়াও রয়েছে বিভিন্ন বনজ, ফলজ এবং ওষুধি গাছের মনোলোভা সারি। রয়েছে নয়ানাভিরাম লেক ও শিশু পাক। চিড়িয়াখানা মোট ২২ দশমিক ১৭ একর জমির ওপর অবস্থিত। জনসাধারনের জন্য এটি উন্মুক্ত করে দেওয়া হয় ১৯৯১ সালে। এই চিড়িয়াখানা দেখভালোর জন্য রয়েছেন একজন ডেপুটি কিউরেটর, একজন জ্যু কর্মকর্তাসহ ১৬ জন কর্মকর্তা ও কর্মচারী। উল্লেখ্য- এক সপ্তাহের লকডাউনের কারনে চিড়িয়াখানা বন্ধ আছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 রংপুর২৪ডটকম-সত্য প্রকাশে সারাক্ষণ[email protected]
Md Prince By rangpur24.com