1. [email protected] : Live Rangpur :
মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ০৯:৪৪ অপরাহ্ন

ফুলবাড়ীতে বাঁশের ফুলের দানা থেকে ভাত ও আটা, এলাকায় চাঞ্চল্য

  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল, ২০২৪
  • ১৭০ Time View
ফুলবাড়ীতে বাঁশের ফুলের দানা থেকে ভাত ও আটা, এলাকায় চাঞ্চল্য
ফুলবাড়ীতে বাঁশের ফুলের দানা থেকে ভাত ও আটা, এলাকায় চাঞ্চল্য

ফুলবাড়ীতে বাঁশের ফুলের দানা থেকে ভাত ও আটা, এলাকায় চাঞ্চল্য

মোঃ হারুন-উর-রশীদ,ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) থেকে;এতো দিন সকলেই জেনে এসেছি ধান থেকে হয় চাউল। তবে এ ধারনা ভুল হতে চলেছে। কারণ দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে বাঁশের ফুল থেকে রীতিমতো বের হচ্ছে চাউল। সেই চাল থেকে রান্না হচ্ছে ভাত, পায়েস, তৈরী হচ্ছে আটা। সেই আটা তৈরী হচ্ছে রুটি। বিষয়টি পুরোনো হলেও দীর্ঘদিন পর নতুন করে এটির ব্যবহার জানাজানি হওয়ায় শুরু হয়েছে চাঞ্চল্য। তবে কৃষি বিভাগ বলছে এগুলো চাউল নয়, বাঁশের ফুলের দানা। এগুলোতে ওষুধিগুণ রয়েছে।
দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলার এলুয়াড়ী ইউনিয়নের লালদিঘী (আদিবাসী পাড়া) গ্রামে দীর্ঘদিন থেকে আদিবাসী সম্প্রদায়ের বাস। এই গ্রামের আশে পাশে প্রচুর কাঁটা যুক্ত ( বেড়া) বাশের থোপ রয়েছে। এসব বাঁশে দীর্ঘ দিন পর ( ১২ থেকে ৪০ বছর) পর ফুল আসে। সেসব ফুলে ধানের মতো বীজ থাকে। এ গ্রামের আদিবাসী সম্প্রদায় বংশ পরমপরায় সেই বীজ সংগ্রহ করে বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় এক ধরনের দানা বের করে যা দেখতে অবিকল চাউলের মতো। সেসব দানা দিয়ে রান্না হচ্ছে ভাত, তৈরী হচ্ছে বিভিন্ন পায়েসসহ মুখ রোচক খাবার, আটা, ছাতু। আদিবাসী সম্প্রদায় বলছে যখন বেড়া বাঁশের মারা যাবার সময় হয় তখন ফুল আসে। ১২ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে একবার ফুল আসে। তাঁরা এসব বাঁশের ফুলের দানা দিয়ে নিয়মিত খাবার ছাড়াও বিয়ে পার্বণসহ বিভিন্ন আয়োজনে ব্যবহার করে আসছেন। কৃষি বিভাগ বলছে এটি ঔষুধি গুণাগুণ সম্পন্ন খাবার। এ বিষয়ে গবেষনায় পরবর্তীতে এর ব্যপক ব্যবহার সম্পর্কে জানা যাবে। তবে স্থানীয় আদিবাসীদের অভিযোগ, দিন দিন বেড়া বাঁশের উৎপাদন করে যাওয়ায় এর ফুলেরও উৎপাদন কমে গেছে। বেঁড়া বাঁেশর উৎপাদন বাড়ানো গেলে ঐতিহ্যবাহী ব্যতিক্রমী এ খাদ্য পন্যের ব্যবহার বাড়বে।

আদিবাসি গ্রামের গৃহবধু মাইকো বাস্কে (৫৫) জানান, আমরা বাপ দাদার সময় থেকে এ চাউল খেয়ে আসছি। বাঁশের ফুল হলে সংগ্রহ করি। এরপর বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় চাউল আটা করে খাই। অতীতে বিয়েসহ বিভিন্ন আয়োজনে এ বাঁশের ফুলের চাল ব্যবহার করা হতো ।আদিবাসি গ্রামের আর এক গৃহবধু রোজিনা বাস্কে (৫৫) বলেন, এগুলো বেড়া বাঁশের ফল। স্বাধীনতার পরে একবার খেয়েছি। এবছর আবার খেলাম।
আদিবাসি গ্রামের দিনমজুর যোশেফ মুর্মু (৬৫) বলেন, আমার মায়ের বিয়ে এ চাউল দিয়ে হয়েছে বলে শুনেছি। আমাদের গ্রামে বহুবছর থেকে এর ব্যবহার হয়ে আসছে। আমাদের ব্যবহার দেখে আশে পাশের অনেকেই এর ব্যবহার করছে।ফুলবাড়ী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রুম্মান আক্তার, এলুয়ারী ইউনিয়নের আদিবাসী সম্প্রদায়ের মধ্যে বাঁশের ফুল থেকে দানা সংগ্রহ করে খাদ্য হিসেবে ব্যবহার করছে। যা ঔষুধি গুণাগুণ সম্পন্ন। ধান গবেষণা কেন্দ্র গবেষণার পর এ বিষয়ে বিস্তারিত বলা যাবে।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © Rangpur24.com  
Md Prince By rangpur24.com