বদরগঞ্জে প্রশাসনিক আদেশ অমান্য করে চলছে বালু উত্তোলন

নিউজ ডেক্স

রংপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম , রংপুর

8 February, 2019 -> 8:22 am.

রংপুরের বদরগঞ্জে প্রশাসনিক আদেশ অমান্য করে অবৈধভাবে বিভিন্ন নদ-নদীর বালু উত্তোলন চলছেই। উপজেলার যমুনেশ্বরী, চিকলী, করতোয়া নদীর পানি শুকিয়ে যাওয়ায় ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে বালু উত্তোলণ অব্যাহত রেখেছে এক শ্রেনীর মহল। গত সোমবার উপজেলা প্রশাসন অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধের ব্যাপারে বালু খেকোদের বিরুদ্ধে নোটিশ জারি করেও বন্ধ হয়নি বালু উত্তোলন। বরং প্রশাসনকে উল্টো বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে তারা বেশ জোরেশোরেই তাদের এই কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছে।, উপজেলার কুতুবপুর ইউনিয়নের উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া যমুনেশ্বরী নদী অ লের সোনারপাড়া এলাকার বিপ্লব মিয়া, তহিদুল হক, রফিকুল ইসলাম, হাতেম আলী, নজরুল ইসলাম, লুলু মিয়া ওয়াজেদ আলীসহ ১০-১২জন ব্যক্তি নদীর বেশ কয়েকটি পয়েন্টে অঘোষিত বালু মহল গড়ে তুলেছেন।তাদের বিরুদ্ধে উপজেলা প্রশাসন কর্তৃক নোটিশ জারি কবা হলেও বন্ধ হয়নি অবৈধ বালু উত্তোলন জানা যায়, বদরগঞ্জ উপজেলার একটি মহল দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন নদ-নদীতে ড্রেজার মেশিন বসিয়ে ও ট্রলি-ভডভটি, ট্রাক্টর দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে আসছে। এমতাবস্থায় এলাকাবাসী ওই সব চিহিৃত বালু খেকোদের বিরুদ্ধে উপজেলা নিবাহী অফিসারের দপ্তরে একাধিক লিখিত অভিযোগ দাখিল করার পর সোমবার উপজেলা প্রশাসনের নির্দেশে অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধে নোটিশ জারি করা হয়েছে। এ বিষয়ে উপজেলার কুতুবপুর ইউনিয়ন সহকারী (ভুমি) হেলালুর রহমান হেলাল জানান আমরা অবৈধ বালু উত্তোলনকারীদেরকে ইতিমধ্যে নোটিশ জারি করেছি, তা সত্ত্বেও যদি কেউ বালু উত্তোলন বন্ধ না রাখে তাহলে অচিরেই তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এছাড়াও উপজেলার কাশিগঞ্জ,নাওপাড়া ও ফেস্কিপাড়া সহ প্রতিটি ইউনিয়নে একই ভাবে বালু উত্তোলন চলছে। যার ফলে নদী এলাকার বসতবাড়ী ও ফসলী জমি নদী গর্ভে বিলিন হওয়ার আশংকা করা হচ্ছে। সেইসাথে একদিকে যেমন ফসলী জমি ও কাঁচা পাকা রাস্তা নষ্ট হচ্ছে, অন্যদিকে তেমনি সরকার হারাচ্ছে লক্ষ লক্ষ টাকার রাজস্ব। উপজেলা নিবাহী অফিসার মোঃ রাশেদুল হক বলেন, অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধে সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের তহশিলদারগনকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।