ব্রেকিং নিউজ-
রংপুরে যৌন হয়রানির ঘটনায় আত্মহত্যা, ৫ আসামির দণ্ড ** নীলফামারীর সৈয়দপুর পৌর বৃত্তি পরীক্ষার বৃত্তির চেক ও সনদপত্র বিতরণ** রংপুরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সাংস্কৃতিক চর্চা বাড়াতে হারমোনিয়াম ও তবলা ডুগি প্রদান** মিঠাপুকুরে ভিডিসি সংস্থার এ্যাডভোকেসী সভা অনুষ্ঠিত ** রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের বিশেষ অভিযানে গ্রেফতার ১০** রংপুর হাজিরহাট থানা কর্তৃক ইয়াবাসহ গ্রেফতার ১ ** ফুলবাড়ীতে চলতি বরো ধান সংগ্রহ ** বাংলাদেশ ন্যাশনাল স্টুডেন্ট অর্গানাইজেশন রংপুরের ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত ** রৌমারী সরকারি কলেজের অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে অবৈধভাবে অর্থ আদায়ের অভিযোগ** গঙ্গাচড়ায় এসডিজি বাস্তবায়ন বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত**

কুড়িগ্রামে ডোবা থেকে নবজাতকের মরদেহ উদ্ধার

নিউজ ডেক্স

রংপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম , কুড়িগ্রাম

9 October, 2018 -> 8:00 am.

কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলার কচাকাটা থানা এলাকার সরকারটারী গ্রামের একটি ডোবার পানিতে ভাসমান অবস্থায় মঙ্গলবার (৯ অক্টোবর) সকালে এক নবজাতকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় অবৈধ গর্ভপাতের অভিযোগে স্থানীয় একটি ডায়াগনস্টিক সেন্টারের মালিকসহ দুই জনকে আটক করা হয়। আটককৃত সহিদুল শহিদুল ইসলাম ও ফরিদুল কচাকাটা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ফারুক খলিল এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, মঙ্গলবার (৯ অক্টোবর) সকালে কচাকাটা ইউনিয়নের সরকারটারী গ্রামের একটি ডোবায় এক নবজাতকের মরদেহ ভাসতে দেখে এলাকাবাসী। মৃত শিশুটি অবৈধ গর্ভপাতের হতে পারে বলে সন্দেহ হয় এলাকাবাসীর। এসময় এলাকাবাসী এই কাজে জড়িত সন্দেহে কচাকাটা বাজারে অবস্থিত জননী ডায়াগনিষ্টিক সেন্টার ও ক্লিনিকের মালিক শহিদুল ইসলাম ও গর্ভপাতের শিকার জনৈক কিশোরীর ফুপা ফরিদুল ইসলামকে আটক করে। এলাকাবাসীর কাছে তারা গর্ভপাতের বিষয়টি স্বীকার করে বলে জানায় ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীরা। এর আগে কিশোরী মা অন্যত্র সটকে পড়ে। পরে এলাকাবাসী কচাকাটা থানা পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে এবং সহিদুল ও ফরিদুলকে থানায় নিয়ে যায়। আটক সহিদুল শহিদুল ইসলাম উপজেলার কচাকাটা ইউনিয়নের সরকারটারী গ্রামের অছিয়ত আলীর ছেলে এবং ফরিদুল বল্লভেরখাস ইউনিয়নের চর রহমানের কুটি গ্রামের মালেক শিকদারের ছেলে বলে জানা গেছে। স্থানীয়দের অভিযোগ, জননী ডায়াগনিষ্টিক সেন্টার ও ক্লিনিকের মালিক শহিদুল ইসলাম দীর্ঘ দিন ধরে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে নিজ বাড়িতে অবৈধ গর্ভপাতের বাণিজ্য করে আসছেন। চিকিৎসক হিসেবে শহিদুলের কোনও সনদ নেই তবুও তিনি নিজেকে চিকিৎসক দাবি করে মানুষের চিকিৎসা করেন। তিনি কচাকাটায় জননী ডায়াগনষ্টিক সেন্টার খুলে অবৈধভাবে ক্লিনিকের ব্যবসাও চালিয়ে আসছে বলে অভিযোগ করে এলাকাবাসী। এ ব্যাপারে কচাকাটা থানার ওসি ফারুক খলিল বলেন, নবজাতকের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। আটককৃতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা করা হবে। এ ব্যাপারে জানতে কুড়িগ্রাম সিভিল সার্জন ডা. মো. আমিনুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, কচাকাটায় জননী ডায়াগনস্টিক সেন্টারের ক্লিনিক হিসেবে কোনও অনুমোদন নেই। খুব শিঘ্রই সেখানে একটি টিম পাঠাবো। তারা তদন্ত করে প্রতিবেদন দিলে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।