ঠাকুরগাঁওয়ে নদীর বালু উত্তোলনে দণ্ডিত সাবেক কাউন্সিলর

নিউজ ডেক্স

রংপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম , ঠাকুরগাঁও

16 September, 2018 -> 12:43 am.

জরিমানার টাকা অনাদায়ে ব্যর্থ হলে তাকে তিন মাসের বিনাশ্রম কারাভোগ করতে হবে। গত রোববার ‘ঠাকুরগাঁওয়ে সরকারি ভবন নির্মাণে নদী থেকে বালু উত্তোলন’ শীর্ষক সংবাদ প্রকাশ করেছিল। ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনাকারী ঠাকুরগাঁওয়ের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, পরিবেশ ভারসাম্য রক্ষায় বালুমহাল ও মাটি ব্যবস্থাপনা আইনসহ অন্যান্য আইনে শনিবার দুপুর ২টার দিকে এ দণ্ডাদেশ প্রদান করা হয়। দণ্ডিত মঈনুল ইসলাম (৫০) শহরের শাহপাড়া এলাকার মৃত মনিরের ছেলে এবং ঠাকুরগাঁও পৌরসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর। ম্যাজিস্ট্রেট মামুন বলেন, দুপুরে ঠাকুরগাঁও শহরের টাঙ্গন নদী এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। এ সময় টাঙ্গন নদীতে অবৈধভাবে ড্রেজার মেশিন বসিয়ে বালু উত্তোলনকারী সাবেক কাউন্সিলর মঈনুল ইসলামকে আটক করা হয়। “এরপর তিনি সকলের সামনে দোষ স্বীকার করলে তাকে পরিবেশ ভারসাম্য রক্ষায় বালুমহাল ও মাটি ব্যবস্থাপনা আইনসহ অন্যান্য আইনে এক লাখ টাকা জরিমানা ও অনাদায়ে তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করা হয়।” এ সময় বালু উত্তোলনের সরঞ্জামাদি জব্দ করা হয় বলেও তিনি জানান। ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার সময় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তরিকুল ইসলাম, জেলা স্যানেটারি ইন্সপেক্টর আখতার ফারুক, স্যানেটারি ইন্সপেক্টর আশীষ কুমার সাহা, পেশকার সাইফুল ইসলাম, ঠাকুরগাঁও সদর থানা পুলিশ ফোর্স, ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল ও আনসার ব্যাটালিয়নের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। শহরের জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবনের পাশে গণপূর্ত বিভাগের তত্ত্বাবধানে ঠাকুরগাঁও জেলা রেজিস্ট্রারের কার্যালয়টি নির্মাণের কাজ চলছে। সেখানে জমি ভরাট করতে অনুমতি ছাড়াই নদী থেকে বালু তোলার অভিযোগ ওঠে ঠিকাদারের বিরুদ্ধে। তবে ওই ঠিকাদারের সঙ্গে শনিবার দণ্ডিত সাবেক কাউন্সিলরের কাজের সম্পর্ক নেই।