ব্রেকিং নিউজ-

রংপুরে দেশি গরুতেই মজেছে কুরবানির হাট

নিউজ ডেক্স

রংপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম , রংপুর

10 August, 2018 -> 4:15 am.

দুয়ারে আসছে ঈদুল আজহা। হাতে আর মাত্র ১০/১২ দিন। তাই ছুটির দিনে প্রথমবারের মত ভিড় বেড়েছে রংপুরের পশু হাটে। ক্রেতাদের পদচারণায় গমগম করছে রংপুরের ঈদ উপলক্ষে বিভিন্ন এলাকার পশুর হাট। ক্রেতা-বিক্রেতাদের দর কষাকষিতে মুখরিত হয়ে উঠেছে উত্তরাঞ্চলের এ হাট গুলোর। আগামী ২২ আগস্ট ঈদ ধরে সিটি হাটে পশুর আমদানি বেড়েছে। শুক্রবার (১০ আগস্ট) সকাল থেকে কোরবানির জন্য গরু-ছাগল কিনতে সাধারণ ক্রেতাদের পাশাপাশি রংপুরসহ দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে পাইকাররা ভিড় জমাচ্ছেন। এদিন অন্যান্য পশু সরবরাহও বেড়েছে। হাটে ভারতীয় গরুর চেয়ে দেশি গরু কম হলেও চাহিদা ও দাম দুটোই বেশ চড়া। বিক্রেতারা বলছেন, গত তিন বছর থেকে রংপুরের লালবাগ হাটসহ বিভিন্ন পশুর হাটে ভারতীয় গরু কম আসছে। ক্রেতাদের কাছে দেশি গরুর চাহিদা বেড়েছে। শুধু তাই না, কয়েক বছর ধরে খামারিরা লাভবান হচ্ছেন। অনেকেই বাড়তি লাভের আশায় বাড়িতে ছোট আকারের খামার তৈরি করে ফেলেছেন। কিন্ত হঠাৎ করে গো খাদ্যের দাম বাড়ায় খামারগুলোতে গরু পালনের সংখ্যা কিছুটা কমেছে। তাই দেশি গরুর দাম এবার অন্য বছরের তুলনায় কিছুটা বেড়েছে। রংপুরের লালবাগ হাট ছাড়াও বুড়ির হাট, শ্যাম্পুরের হাট, পীরগাছা হাট, কাউনিয়া, তারগঞ্জ, বদরগঞ্জ হাটে কোরবানির পশুর দামের তারতম্য একই। রংপুরের লালবাগ হাটে গিয়ে দেখা গেছে ছোট সাইজের গরুর (৬০ কেজি মাংস) দাম ৪০ থেকে ৫০ হাজার টাকা। মাঝারি সাইজের গরুর (৮০ কেজি মাংস) দাম ৬০ থেকে ৭০ হাজার ও বড় সাইজের গরুর (১০০-১৪০ কেজি মাংস) দাম ৯০ থেকে ১ লাখের ওপরে হাঁকানো হচ্ছে। অপরদিকে আনুমানিক ১০ থেকে ১২ কেজি ওজনের কোরবানির ছাগলের দাম ৯ থেকে ১০ হাজার টাকা, ১৫ থেকে ১৮ কেজি ওজনের ছাগলের দাম ১৪ থেকে ১৫ হাজার টাকা ও ২০ থেকে ২৫ কেজি মাংসহবে এমন ছাগলের দাম হাঁকা হচ্ছে ১৮ থেকে ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত। সময় ঘনিয়ে আসায় এখন গরুর সরবরাহ বাড়েছে। তবে হাটে ভারতীয় গরু থাকলেও ক্রেতাদের মধ্যে দেশি গরুর চাহিদা বেশি। কিন্তু দেশি গরুর সরবরাহ কম থাকায় দাম একটু বেশি। সরবরাহ বাড়লে দাম কমে আসবে। সেজন্য আরও কিছুটা সময় অপেক্ষা করতে হবে। এবারে হাট গুলোতে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা করা রয়েছে। মাইকের মাধ্যমে সব সময় ক্রেতা-বিক্রেতাদের লেনদেন করতে সতর্ক থাকার পরামর্শ প্রদান করা হচ্ছে। তবে হাটে এখন পর্যন্ত অবৈধভাবে গরু মোটাতাজাকরণ করেছে কি না তা পরীক্ষা করার জন্য কোনো ডাক্তার নেই।এছাড়া জালনোট শনাক্ত করার জন্য মেশিন রাখা হয়েছে। সব মিলিয়ে পশুর হাটে ধীরে ধীরে কেনাবেচা জমে উঠেছে বলেও জানান হাট ইজারাদার।