শিরোনাম-
কুড়িগ্রাম উলিপুরে স্কুল শিক্ষিকা অপহরনের চেষ্টা** 'হাসিনাকে হত্যা করতে গ্রেনেড হামলা হয়েছিল' রংপুর জেলা আওয়ামীলীগের দোয়া মাহফিল ও আলোচনা সভায় রেজাউল করিম রাজু ** দিনাজপুরে গোর-এ শহিদ ময়দানে ঈদের জামাত ৯টায়** ঠাকুরগাঁওয়ে চাচার হাতে ভাতিজি খুন** রংপুরে শেষ মূহুর্তে জমে উঠেছে ঈদের কেনাকাটা** রংপুরে ক্যান্সারে আক্রান্ত দীপ্ত টিভির সাংবাদিকের সুস্থতার জন্য ওয়াদুদ আলীর দোয়া কামনা ** রংপুরে ঈদের প্রধান জামাত সাড়ে ৮টায়** যেভাবে কোরবানির পশুর যত্ন নিতে হবে** লালমনিরহাট ২ বিএনপি র মনোনয়ন প্রত্যাশী তালিকায় ইন্জিনিয়ার কামাল এগিয়ে** লালমনিরহাটের কালীগঞ্জের বিভ্ন্নি গ্রামে ঈদুল আযহার নামাজ আদায় **

পলাশবাড়ী উপজেলার দিগদাড়ী ১ ও ২নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ

অনলাইন নিউজ

রংপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম , গাইবান্ধা

9 August, 2018 -> 8:08 am.

গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলার হোসেনপুর ইউনিয়নের দিগদাড়ী ১ ও ২নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। লিখিত অভিযোগে জানা যায়, ১নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে স্বামী প্রধান শিক্ষক ২নং সরাকরি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তার স্ত্রী প্রধান শিক্ষক দু’জনে বিদ্যালয় দু’টিতে সরকারি বরাদ্দের ব্যাপক তচরুপের অভিযোগ এনে বিদ্যালয়ের সভাপতি বিভিন্ন দপ্তরে দাখিল করেন। বিদ্যালয় দু’টিতে শিক্ষার্থীর সংখ্যা হাতে গোনা। বৃহস্পতিবার সকালে অভিযোগের প্রেক্ষিতে সরেজমিন উপস্থিত হলে ১নং দিগদাড়ী সরকারি প্রাথমিক মাত্র ১৫ জন শিক্ষার্থী উপস্থিত পাওয়া যায়। শারীরিক পরীক্ষা চলাকালে প্রধান শিক্ষক আতোয়ার রহমানকে বিদ্যালয়ের অভিযোগ ব্যাপার জিজ্ঞাসা করলে তিনি সব অভিযোগ উড়িয়ে দেন। ৫ পদ বিশিষ্ট বিদ্যালয়। ১ লক্ষ ৭৭ হাজার থেকে শুরু করে এ পর্যন্ত সব বরাদ্দের অনিয়মের কথা অস্বীকার করে। এরপর পার্শ্ববতী ২নং দিগদাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় উপস্থিত হলে শিক্ষার্থী হাতে গোনা চোখে পড়ে। বিদ্যালয়ে ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আসাদুজ্জামান আসাদ অভিযোগ বলেন, অত্র বিদ্যালয়ে সিএসএফ-এর ১ লক্ষ ৭৭ হাজার টাকা, ৮০ হাজার, ৫১ হাজারসহ শিশু শ্রেণীর ৫ হাজার টাকা ও চলতি অর্থবছরে বিদ্যালয়ের সংস্কারের জন্য টাকা বরাদ্দ কোন কাজ না হওয়ায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে এক লিখিত অভিযোগ দাখিল করে। এর আগে বিষয়টি উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার আতিকা বেগমকে জানালে সে কোন ব্যবস্থা নেয়নি বলে সভাপতি জানায়। এ ব্যাপারে প্রধান শিক্ষক শিরিনা খাতুনকে বিষয়টি জিজ্ঞাসা করলে তিনিও তার স্বামীর সকল অভিযোগ উড়িয়ে দেন। অভিযোগের বিষয়ে উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার আতিকা বেগমের মুঠোফোনে বারবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।