রংপুরে গরু-ছাগলের হাট

আল আমিন

প্রতিনিধি, রংপুর

8 August, 2018 -> 1:02 am.

আসছে কুরবানির ঈদ, আর সেই কুরবানির ঈদকে সামনে রেখে শুরু হয়েছে রংপুরে গরু-ছাগলের হাট। কোরবানির ঈদের বাকি মাত্র ১৫দিন এরই মাঝে জমে উঠেছে কুরবানির জন্য গরু-ছাগলের বেচা-কেনার ধুম সরে জমিনে বুড়ির হাট গিয়ে দেখা গেছে কুরবানির জন্য হাজার হাজার গরু ও ছাগল উঠেছে দেশি গরুর পাশাপাশি ভারতের গরুও চোখে পরার মত। বুড়ির হাটে গিয়ে দেখা গেছে লোকাল ক্রেতার চেয়ে বাইরের ক্রেতা বেশি তারা গরু কিনে বাইরে নিয়ে গিয়ে বিক্রি করবে। সেখানে গিয়ে কথা হয় কয়েকজন ক্রেতা-বিক্রেতার সাথে তারা বিভিন্ন মত প্রকাশ করেন নিচে কয়েক জন এর বক্তব্য উল্ল্যেখ করা হলো বিক্রেতা সমসের আলি ইচরির চড় থেকে এসেছে তিনি বলেন, ভাই পাঁচটা গরু নিয়ে এসেছি একটি ও বেচতে পাইনি ক্রেতারা যে দাম বলে সেই দামে বিক্রয় করলে ৭-৮০০০ টাকা লোকসান হবে গরু ফেরত নিয়ে যাওয়ার চিন্তা করছি, ভারত থেকে গরু ঢোকার কারনে দাম এতো কম, এ ব্যপারে প্রশাষনে হস্তক্ষেপ কামনা করছি। আর এক বিক্রেতা শামিম বলেন, ভাই গরুকে খাওয়ানোর জন্য যখন খাবার কিন্তে যাই তখন দেখি খাওয়ানোর সামগ্রির দাম অনেক এবং প্রত্যেকদিন দাম বারতেই আছে, পাশাপাশি বিক্রি করতে এসে দেখি গরুর দাম যেটার ৩৫,০০০ টাকা সেই গরুর দাম ক্রেতারা করছে ২৩,০০০ টাকা তাহলে কেমনে পোষাবে ভাই, বাহির থেকে গরু আসার কারনে এই অবস্থা সরকার এর নিকট সবার পক্ষথেকে আমার আবেদন যাতে করে বাইরের গরু আনা কমাই দেয় না হলে আমরা খামার ওয়ালারা লোকসানে পরে যাবো। আর এক বিক্রেতা সামসুল বলেন, ভাই একটা গরু পোষাতে বহু খরচ, হিসাব করে দেখেছি বছরে একটি গরুর পিছনে বাড়ির খাবার বাদ দিয়ে প্রায় ২০-২১,০০০ হাজার টাকার শুধু খাবার কিন্তে হয়, তাহলে হিসাব করে দেখেন অন্য খরচ সহ কি রকম খরচ পরতে পারে সেই গরুর দাম বলে ২২,০০০ টাকা তাহলে পোষাবে কেমনে, এ রকম দাম হলে মোটাতাজা করন ইনজেকশন ব্যবহার করা ভালো তাহলে কয়েকদিনে গরু অনেক বড় স্বাস্থ্যবান হয় দাম ও ভালো পাওয়া যায়। ক্রেতা সোহাগ বলেন ভাই আমি গাইবান্ধা থেকে এসেছি গরুকেনার জন্য আগের চেয়ে গরুর দাম খানিকটা চড়া বাহির থেকে গরু না ঢোকার কারনে এ অবস্থা, এই গরু এতো দাম দিয়ে নিয়ে গেলে আমি লচে পরে যাব কিযে করবো বুঝতে পারছিনা। আর এক ক্রেতা কাশেম বলেন ভাই গরুর দাম তুলনা মূলক বেশি আমরা কিছু গরু কিন্তে আসছি গরু নিয়ে ঢাকা যাবো, গরুর দাম যে হারে চাচ্ছে নিয়ে গিয়ে পোষাতে পারবো কিনা আল্লায় যানে। এবার বাইরের গরু কম দেখা যাচ্ছে তাই এতো দাম মনে হয়। মাঠ ইজারাদার সামসুল বলেন, গরু এখোনো বেশি উঠেনি তাই তুলনা মুলক দাম বেশি তাছাড়া বাহিরের গরুও তেমন চোখে পড়ছেনা, বাইরের গরু আসা শুরু হলে গরুর দাম কিছুটা কমে আসবে, সরকারকে বলবো ভারতের গরু আসতে দেন না হলে গরুর সংকট হবে এবং ক্রেতাদের ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে থাকবেনা। চলবে