ঠাকুরগাঁওয়ে গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যা, স্বামী-শাশুড়ি আটক

নিউজ ডেক্স

রংপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম , বিষেশ বুলেটিন

27 July, 2018 -> 12:05 pm.

ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুরে যৌতুকের দাবিতে আয়েশা (২১) নামে এক গৃহবধূকে শ্বশুরবাড়ির লোকজন পিটিয়ে হত্যা করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। শুক্রবার দুপুরে পাঁচজনের বিরুদ্ধে হত্যার অভিযোগ এনে গৃহবধূ আয়েশার বাবা আব্দুল হাই হরিপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। এরপর পুলিশ উপজেলার ভেটনা গ্রামে অভিযান চালিয়ে আয়েশার স্বামী আমিরুল ইসলাম (৩০) ও শাশুড়ি শেফালীকে (৫০) আটক করেছে। আটক আমিরুল উপজেলার ২নং আমগাও ইউনিয়নের ভেটনা গ্রামের মোজাম্মেল হকের ছেলে ও শেফালী মোজাম্মেল হকের স্ত্রী। নিহত আয়েশা একই উপজেলার হরিপুর সদর ইউনিয়নের খোলড়া গ্রামের আব্দুল হাইয়ের মেয়ে। নিহত আয়েশার বাবা আব্দুল হাই বলেন, গত তিনবছর আগে মেয়ে আয়েশা সঙ্গে উপজেলার ভেটনা গ্রামের মোজাম্মেল হকের ছেলে আমিরুল ইসলামের বিয়ে হয়। মেয়ের বিয়ের সময় জামাইকে এক লক্ষ ১০ হাজার টাকা যৌতুক হিসেবে দেই। বিয়ের কিছুদিন যেতে না যেতেই আরও যৌতুক নেয়ার জন্য আমার মেয়েকে চাপ প্রয়োগ করলে মেয়ের সুখের কথা চিন্তা করে আরও ১ লাখ টাকা যৌতুক হিসেবে দেই। আবার কিছুদিন পর জামাই আমিরুল আয়েশাকে আরও যৌতুক নিয়ে আসতে চাপ প্রয়োগ করলে সে অপরাগতা প্রকাশ করে। এরপর থেকেই তার ওপর শ্বশুরবাড়ির লোকজন শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন শুরু করে। তিনি আরও বলেন, গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে যৌতুকের জন্য আমার মেয়ে আয়েশাকে তার স্বামীসহ পরিবারের লোকজন বেধরক মারপিট করে। এতে আয়েশা জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। বিষয়টি জানতে পেরে দুপুর ২টার দিকে সেখানে গিয়ে মেয়েকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য প্রথমে রানীশংকৈল হাসপাতালে নিয়ে যাই। কর্তব্যরত ডাক্তার আয়েশাকে চিকিৎসা দিতে অপরাগতা প্রকাশ করলে সঙ্গে সঙ্গে দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাই। সেখানে রাত ১১টার দিকে আয়েশার মৃত্যু হয়। এ বিষয়ে হরিপুর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রুহুল কুদ্দুছ বলেন, এ ঘটনায় দুইজনকে আটক করা হয়েছে। নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য ঠাকুরগাঁও মর্গে পাঠানো হয়েছে।