শিরোনাম-
কুড়িগ্রাম উলিপুরে স্কুল শিক্ষিকা অপহরনের চেষ্টা** 'হাসিনাকে হত্যা করতে গ্রেনেড হামলা হয়েছিল' রংপুর জেলা আওয়ামীলীগের দোয়া মাহফিল ও আলোচনা সভায় রেজাউল করিম রাজু ** দিনাজপুরে গোর-এ শহিদ ময়দানে ঈদের জামাত ৯টায়** ঠাকুরগাঁওয়ে চাচার হাতে ভাতিজি খুন** রংপুরে শেষ মূহুর্তে জমে উঠেছে ঈদের কেনাকাটা** রংপুরে ক্যান্সারে আক্রান্ত দীপ্ত টিভির সাংবাদিকের সুস্থতার জন্য ওয়াদুদ আলীর দোয়া কামনা ** রংপুরে ঈদের প্রধান জামাত সাড়ে ৮টায়** যেভাবে কোরবানির পশুর যত্ন নিতে হবে** লালমনিরহাট ২ বিএনপি র মনোনয়ন প্রত্যাশী তালিকায় ইন্জিনিয়ার কামাল এগিয়ে** লালমনিরহাটের কালীগঞ্জের বিভ্ন্নি গ্রামে ঈদুল আযহার নামাজ আদায় **

ঠাকুরগাঁওয়ে শ্মশানে সৎকারে বাঁধা ! ১ জন গ্রেফতার

অনলাইন নিউজ

রংপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম , পঞ্চগড়

10 July, 2018 -> 1:13 pm.

ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুর উপজেলার গেদুরা ইউনিয়নের হাটপুকুর গ্রামে শ্মশানঘাটে লাশ সৎকারে বাধা দেওয়ায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় সৎকারে বাঁধা দেওয়ার অপরাধে আবু হুর নামে এক ব্যক্তিকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, জেলার হরিপুর উপজেলার গেদুরা ইউনিয়নের রাজাদীঘি গ্রামের বিলখা বর্মন গত রোববার রাতে মারা যায়। পরিবারের লোকজন সোমবার দুপুর ১ টায় তার লাশ নিয়ে সৎকারের জন্য নিয়ে যায় হাটপুকুর শ্মশানঘাটে। এ সময় আবু হুর নামে এক ব্যক্তি ওই শ্মশানঘাটে লাশ সৎকারে বাঁধা দেয়। এমনকি মৃতদেহ সৎকারের যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন করার পরও মৃতদেহটি নিয়ে টাঁনা হেছড়া করে। লাশ কবরে নামানোর পরে আবার তুলতে বাধ্য করে। এসময় লাশের লোকজন ও আবু হুরের লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। সংঘর্ষে রমেত ও সমেত আহত হয়। হরিপুর থানা পুলিশ ঘটনা স্থলে এসে মোতালেব হোসেনের ছেলে আবু হুরকে তাৎক্ষনিক গ্রেফতার করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। হাটপুকুর শ্মশানঘাটের সাধারণ সম্পাদক বিদেশী রায় জানান, এই শ্মশানঘাটে মোট ২.২৭ একর জমি ছিল। আমাদের বাপ-দাদারা আমাদের জন্মের পূর্ব থেকে এখানেই লাশ সৎকার করে আসছে। গত ২/৩ বছর থেকে এই ভূমিদস্যুরা আমাদের উপর হামলাসহ বিভিন্ন হুমকি দিয়ে অধিকাংশ জমি গ্রাস করে ফেলেছে। এদিকে এ বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী অফিসার এম জে আরিফ বেগকে জানানো হলে তিনি পুলিশ ও গ্রাম পুলিশ পাঠায় উদ্ভুদ্ধ ঘটনাটি নিয়ন্ত্রনের জন্য। মৃতের লোকজন পুলিশের উপস্থিতিতে লাশ সৎকারের কাজ শুরু করলে আবু হুর ও তার লোকজন আবারো সৎকারে বাঁধা দেয়। এতে উভয়পক্ষের মাঝে সংঘর্ষ বেঁধে যায়। সংঘর্ষে মৃত ব্যক্তির দুই ছেলে রমেশ, সমেশ গুরুতরভাবে আহত হয়। এ ঘটনায় আবুহুর (৩৫) পিতা মৃত মোতালেব, মাহাবুব (৪১) পিতা খালেক, মাঠকু (৫০) পিতা বশির উদ্দীন ছাটাং, সোহরাব (৪৮) ও আল মামুন (৫০) উভয়ের পিতা মৃত খলিল, করিম (৫০) পিতা সেন্নিখুয়া, মো: ময়না (৩০) পিতা হাতিম, সুমন (২২) পিতা করিম, রিয়াজ (৪৮) পিতা মাঠকু, মুনি (৩০) পিতা মোতালেব, নাছিমা, স্বামী: মাহবুব, ববি, স্বামী- লিটন, মুফা লাইলী, করিমসহ লাশ সৎকারে বাধা প্রদান করে। হরিপুর থানার ওসি রুহুল কুদ্দুস জানান, খবর পেয়ে পুলিশ লাশ সৎকারে বাঁধাদান কারী আবুহুরকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে আসে। গ্রেফতারকৃত আবুহুর হরিপুর উপজেলার হাটপুকুর গ্রামের মৃত আব্দুল মোতালেবের ছেলে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। সৎকারে বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার এম জে আরিফ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।