প্রয়োজনে এরশাদকে বিদেশে চিকিৎসা করাবেন প্রধানমন্ত্রী

নিউজ ডেক্স

রংপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম , বিশেষ বুলেটিন

30 June, 2019 -> 11:06 am.

চিকিৎসাধীন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের সার্বিক খোঁজ-খবর রাখছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। উন্নত চিকিৎসার জন্য প্রয়োজন হলে চিকিৎসকের পরামর্শে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে সাবেক রাষ্ট্রপতিকে সিঙ্গাপুর নিয়ে যাওয়ার কথাও বলেন প্রধানমন্ত্রী। সিএমএইচে চিকিৎসাধীন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদের সর্বশেষ শারীরিক পরিস্থিতি ও চিকিৎসা নিয়ে রোববার দুপুরে কথা বলতে গেলে সংসদের বিরোধী দলের উপনেতা রওশন এরশাদকে এ বিষয়ে সরকারের চিন্তাভাবনার কথা জানান প্রধানমন্ত্রী। রওশন এরশাদের ঘনিষ্ঠ একটি সূত্র এসব তথ্য জানায়। সূত্র আরো জানায়, দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল (সিএমএইচে) স্বামী এরশাদকে দেখতে যান রওশন এরশাদ। তার শারীরিক অবস্থার অবনতি দেখে মন খারাপ হয়ে যায় বিরোধী দলের উপনেতার। দুপুরে সংসদে আসেন তিনি। অধিবেশনের এক ফাঁকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করেন রওশন এরশাদ। এ সময় তিনি সিএমএইচে চিকিৎসাধীন এইচ এম এরশাদের সার্বিক পরিস্থিতি তুলে ধরে বলেন, সাবেক রাষ্ট্রপতির শরীরের অবস্থা খুবই দূর্বল, দিন দিন অবনতি ঘটছে। এখনই উন্নত চিকিৎসার জন্য এরশাদকে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে সিঙ্গাপুর নিয়ে যাওয়া দরকার। এজন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে তিনি প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ জানান। রওশনকে সান্ত্বনা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা এরশাদের শারীরিক অবস্থার সার্বক্ষনিক খোঁজ-খবর নিচ্ছি। তাকে সিএমএইচে উন্নতমানের চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। উন্নত চিকিৎসার জন্য যদি সিঙ্গাপুরে যেতে হয় আমরা ব্যবস্থা নেব। চিকিৎসকদের পরামর্শে প্রয়োজনে আরো উন্নত রাষ্ট্রে নিয়ে যাওয়ার দরকার হলে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে সেখানে পাঠানো হবে। প্রধানমন্ত্রী এরশাদের চিকিৎসার ব্যয়ভার বহনেরও আশ্বাস দেন। স্বামী এরশাদের অসুস্থ্যতায় নিজের মানসিক বিপর্যয়ের সময় প্রধানমন্ত্রীকে পাশে পেয়ে কিছুটা মনোবল ফিরে পান রওশন এরশাদ। এসময় তিনি প্রধানমন্ত্রীর প্রতি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। এদিকে সিএমএইচে চিকিৎসাধীন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের শারীরিক অবস্থার হঠাৎ অবনতি ঘটেছে। কথা বলা বন্ধ হয়ে গেছে। কাউকে চিনতেও পারছেন না। স্বাভাবিক নড়াচড়াও কমে গেছে। শ্বাস-প্রশ্বাস নিতে খুব বেশি কষ্ট হচ্ছে। তাকে অক্সিজেন সাপোর্টে রাখা হয়েছে। তার শারীরিক অবস্থার আরো অবনতি ঘটতে পারে বলে চিকিৎসকরা আশঙ্কা করছেন। রোববার দুপুরে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটে। হাসপাতালের ক্রিটিক্যাল কেয়ার সেন্টারে তাকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। শ্বাস-প্রশ্বাস যাতে নিতে পারেন, সেই চেষ্টা করা হচ্ছে। বিকাল ৪টার দিকে এরশাদকে দেখে আসেন তার প্রেস অ্যান্ড পলিটিক্যাল সেক্রেটারি সুনীল শুভরায়। তিনি রাইজিংবিডিকে জানান, ‘স্যারের শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটেছে। তবে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন লাইফ সাপোর্টে নিয়ে যাওয়ার মত পরিস্থিতি হয়নি। শ্বাস-প্রশ্বাস নিতে স্যারের কষ্ট হচ্ছে। তাকে অক্সিজেন দেওয়া হচ্ছে। পরিস্থিতি উত্তরণে চিকিৎসকরা সর্বোচ্চ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।’ সুনীল শুভরায় জানান, ‘স্যার একদিন আগেও কথা বলেছেন। তার ৫০ ভাগ শারীরিক অবস্থার উন্নতি হয়েছিল। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, স্যারের চারটি সমস্যার মধ্যে তিনটির অবস্থা খুব ভাল। হিমোগ্লোবিনও বৃদ্ধিসহ তিন সমস্যারও উন্নতি ঘটেছে। কিন্তু একটা সমস্যা হঠাৎ বেড়ে গেছে। সেটা হলো শ্বাস-প্রশ্বাস নিতে পারছেন না স্যার। এ কারণে তার অবস্থার অবনতি ঘটে। সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদের সুস্থ্যতা কামনায় তিনি দেশবাসীর দোয়া চেয়েছেন।’ এরশাদের অসুস্থ্যতা, চিকিৎসা ব্যবস্থা, শারীরিক পরিস্থিতিসহ সার্বিক বিষয় নিয়ে রোববার সন্ধ্যায় জাতীয় পার্টির বনানী অফিসে সংবাদ সম্মেলন করেছেন দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জিএম কাদের। এসময় উপস্থিত ছিলেন দলের মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা এমপি, প্রেসিডিয়াম সদস্য সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা এমপি, সুনীল শুভরায়, শফিকুল ইসলাম সেন্টু, ভাইস চেয়ারম্যান জহিরুল আলম রুবেল, মোস্তাকুর রহমান মোস্তাক প্রমুখ।