লালমনিরহাটের কালীগঞ্জে ঘুষ নেয়ার অভিযোগে কালীগঞ্জ সেটেলমেন্ট অফিসের পেশকার অবরুদ্ধ

শাহার্রুপ সুমন

নিজস্ব প্রতিবেদক, লালমনিরহাট

24 June, 2019 -> 10:34 am.

লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলা সেটেলমেন্ট অফিসের ভারপ্রাপ্ত পেশকার তরিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে জমির পর্চা দেয়ার আশ্বাস দিয়ে এলাকাবাসীর কাছ থেকে মোটা অঙ্কের ঘুষ নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। এলাকাবাসীর কাছ থেকে ঘুষের টাকা গ্রহণ করে দীর্ঘদিন ধরে জমির পর্চা না দিয়ে নানান টালবাহানা করায় সোমবার ২৪ জুন বিক্ষুব্ধ জমির মালিকরা সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসের ভারপ্রাপ্ত পেশকার তরিকুল ইসলামকে তার নিজ অফিস কক্ষে অবরুদ্ধ করে রাখেন। পরে কালীগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি আবু সাঈদ ও উপজেলা চেয়ারম্যান মাহবুবুজ্জামান আহমেদ খবর পেয়ে সেটেলমেন্ট অফিসে গিয়ে তাকে উদ্ধার করে। এ সময় বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী ওই পেশকার তরিকুলের গ্রহণকৃত ঘুষের টাকা ফেরত ও উর্পযুক্ত শাস্তি ও বিচার চেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ করেন। এ অফিসে জমিজমা সংক্রান্ত বিভিন্ন রকম পর্চা ও রেকডের সংশোধন বাবদ কাগজপত্রে আইনের জটিলতা দেখিয়ে এলাকার জমির মালিকদের কাছ থেকে সরকারী নির্ধারিত খরচ ছাড়াও মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগও পাওয়া গিয়াছে পেশকার তরিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে। তিনি দালালদের সাথে যোগসাজশে দীর্ঘদিন যাবৎ অনিয়ম দুর্নীতির মাধ্যমে এলাকার জমির মালিকদের কাছ থেকে অবৈধভাবে মোটা অংকের টাকা উপার্জন করেছেন। ম্যাপশিট তুলতে সরকারি ফি ছাড়াও দলিলের নকল রংপুর থেকে তুলে এনে দেয়ার নাম করে ৫ হাজার থেকে ১০ হাজার টাকা নেওয়ার ও অভিযোগ রয়েছে। উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা জমির মালিকগন জানান, পর্চার জন্য সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসের ভারপ্রাপ্ত পেশকার তরিকুল ইসলাম তাদের কাছে মোটা অঙ্কের ঘুষ দাবি করেন। কিন্তু দাবিকৃত টাকা দিতে না পারায় জমির পর্চা দিতে টালবাহানা শুরু করে। এক পর্যায় মৌজা শাখাতী এলাকার কৃষক মতিয়ার রহমান ৩২ হাজার ও রশিদা সাড়ে ৫ হাজার, ফারুক ৩৫ হাজার টাকা সহ বেশ কিছু জমির মালিকগনের কাছ থেকে পেশকার তরিকুল প্রায় কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে তাদের জমির পর্চা না দিয়ে তরিকুলের অন্যত্র বদলি খবর ছড়িয়ে পড়লে এলাকাবাসী সোমবার ২৪ জুন টাকা ফেরত চেয়ে তার অফিসে তাকে অবরুদ্ধ করে রাখে। ভুক্তভোগী সাধারণ জনগণ ও সুশীল সমাজ কালীগঞ্জ সেটেলমেন্ট অফিসের দুর্নীতিবাজ পেশকার তরিকুলের বিরুদ্ধে সঠিক তদন্ত করে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে দাবী জানান। বিষটি নিয়ে সেটেলমেন্ট অফিসার ফজলুর রহমান জানান, এলাকাবাসীর কাছ থেকে টাকা নেয়ার ঘটনাটি সুনির্দিষ্ট লিখিত অভিযোগ পেলে তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।