স্বাস্থ্য কর্মীর সেবায় খুশি পলাশবাড়ীর প্রসূতি মায়েরা

নিউজ ডেক্স

রংপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম , গাইবান্ধা

20 June, 2019 -> 2:08 am.

উচ্চতর ডিগ্রি বা দেশের বাহিরের প্রশিক্ষণ নেই তার, আছে শুধু সেবার মনোভাব ও ইচ্ছা শক্তি। সিমিত সম্পদ ব্যবহার করে গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলার নিলুফার ইয়াসমিন নামে এক জন স্বাস্থ্য কর্মী প্রসূতি মা’দের সেবায় উজ্জল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। চার বছর আগের পলাশবাড়ী উপজেলার হরিনাথপুর এলাকার গর্ভবতী মায়েরা প্রসব বেদনা নিয়ে প্রায় ২০ কিলোমিটার দুরে হাসপাতালে যেতেন। পথে অনেক মায়ের সন্তান প্রসব হতো। সময় মতো সঠিক সেবা না পাওয়ার কারণে অকালমৃত্যু হতো প্রসূতি মায়ের। প্রসূতি মা’দের সেই অসহ্য যন্ত্রণা লাঘব করার জন্য দিন-রাত সেবা করে যাচ্ছে হরিনাথপুর কমিউনিটি ক্লিনিকের স্বাস্থ্য কর্মী নিলুফার ইয়াসমিন। প্রসূতি মা’দের কাছে তিনি এখন দুর্দিনের বন্ধু। তার প্রচেষ্টায় বদলে গেছে খেটে খাওয়া মানুষের স্বাস্থ্যসেবার চিত্র। গত চার বছরে হরিনাথপুর কমিউনিটি ক্লিনিকের ছোট্ট কুঠরিতে জন্ম নিয়েছে প্রায় দু’শতাধিক শিশু। এ গ্রামের গর্ভবতী মায়েরা বিনা পয়সায় সেবা পেয়ে অনেক খুশি। প্রথম দিকে তার প্রতি ভরসা রাখতে না পারলেও এখন প্রসূতি মায়ের পরিবারের ভরসা স্বাস্থ্য কর্মী নিলুফার ইয়াসমিন। পলাশবাড়ী উপজেলার হরিনাথপুর কমিউনিটি ক্লিনিকের হেলথ প্রোভাইডার নিলুফার ইয়াসমিন বলেন কিছু রোগির জটিলতার কারণে তাদেরকে গাইবান্ধা সদর আধুনিক হাসপাতালে পাঠাতে হয়। সে ক্ষেত্রে যানবাহন সংগ্রহ করতে তাদের সমস্যায় পড়তে হয়। ২০১১ সালে কমিউনিটি ক্লিনিকটি স্থাপন হওয়ার পর প্রসূতি মায়ের পাশাপাশি সাধারণ রোগিরা ভাল ভাবে সেবা পাচ্ছে। গাইবান্ধা সিভিল সার্জন ডাঃ এবিএম আবু হানিফ বলেন তিনি যে কাজ করে যাচ্ছেন তা অন্য চিকিৎসকদের কাছে উদাহরণ হয়ে থাকবে।